‘বাংলার অবস্থা স্বাধীনতার সময়ের থেকেও খারাপ’, মোদী-শাহের কাছে রিপোর্ট পাঠাচ্ছে তফশিলি কমিশন

[ad_1]

এক হাজার অভিযোগ নথিভুক্ত

আর এই বিতর্কের মধ্যেই বৃহস্পতিবার রাজ্য সফরে আসে জাতীয় এসসি-এসটি কমিশনের চেয়ারম্যান। রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় ভোট পরবর্তী হিংসায় তফশিলি জাতি-উপজাতিদের ওপর হামলায় বিজেপির অভিযোগ খতিয়ে দেখে কমিশন। বৃহস্পতিবারই কমিশনের প্রতিনিধিরা বর্ধমানের জৌগ্রামে যান। কথা বলেন সেখানকার মানুষের সঙ্গে। এছাড়াও রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে ঘুরে বেড়ান প্রতিনিধির সদস্যরা। জানা গিয়েছে, ভোট পরবর্তী সময়ে দুদিনের পশ্চিমবঙ্গ সফরে এসে প্রায় এক হাজার অভিযোগ নথিভুক্ত করেছে জাতীয় তপশিলি জাতি উপজাতি কমিশন।

ধর্ষণের ১১ টি অভিযোগ সামনে এসেছে

ধর্ষণের ১১ টি অভিযোগ সামনে এসেছে

এরপরেই সাংবাদিক বৈঠকে মুখোমুখি হন কমিশনের চেয়ারপার্সন। সেখানে তিনি জানান, “স্বাধীনতার সময় বাংলা সম্পর্কে হিংসার কথা শুনেছিলাম। পশ্চিমবঙ্গে এসে যে ছবি দেখলাম তা সেই সময়ের থেকেও খারাপ।” শুধু তাই নয়, মমতা সরকারের বিরুদ্ধও এদিন একগুচ্ছ অভিযোগ করেন তিনি। কমিশনের চেয়ারপার্সন জানিয়েছেন, রাজ্য সরকার হিংসা কবলিত মানুষদের কোনও রকম সহযোগিতা করেনি। বর্ধমান এবং দক্ষিণ ২৪ পরগনার একাধিক জায়গা পরিদর্শন করে প্রায় হাজার অভিযোগ নথিভুক্ত করেছে কমিশন। আরও অভিযোগ জমা পড়েছে বলেও জানিয়েছেন তিনি। শুধুমাত্র তপশিলি জাতি উপজাতি মানুষদের উপর অত্যাচার নয়, ধর্ষণের গুরুতর অভিযোগও তাঁদের সামনে এসেছে বলে সাংবাদিক বৈঠকে অভিযোগ করেন তাঁরা। কমিশনের দাবি, ধর্ষণের ১১ টি অভিযোগ সামনে এসেছে। যা মারাত্মক বলে দাবি তাঁদের।

রিপোর্ট যাবে খোদ প্রধানমন্ত্রীর কাছে

রিপোর্ট যাবে খোদ প্রধানমন্ত্রীর কাছে

কমিশনের চেয়ারপার্সন জানান, তিনি পশ্চিমবঙ্গ সরকারের উচ্চপদস্থ আধিকারিকদের নির্দেশ দিয়েছেন ঘটনাগুলির বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য। যারা ঘরছাড়া রয়েছেন তাঁদের বাড়িতে ফিরিয়ে আনার ব্যবস্থা করা হোক, পুলিশ প্রশাসনকে নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। শুধু তাই নয়, এই পূর্ণাঙ্গ রিপোর্ট তিনি দেশের প্রধানমন্ত্রী এবং রাষ্ট্রপতির কাছে জমা দেবেন বলেও জানান। প্রয়োজন হলে পশ্চিমবঙ্গের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে প্রশ্ন তুলে দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের কাছেও এই বিষয়ে রিপোর্ট জমা দেবেন বলে জানিয়েছেন।

রাজ্যে শিশু সুরক্ষা কমিশনের প্রতিনিধিদল

রাজ্যে শিশু সুরক্ষা কমিশনের প্রতিনিধিদল

অন্যদিকে, একের পর এক প্রতিনিধি দল আসছে বাংলায়। সূত্রের খবর, এ বার নতুন করে কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে শিশু সুরক্ষা কমিশনের একটি প্রতিনিধিদল আসতে চলেছে। আগামী সপ্তাহেই তাঁরা আসতে পারেন বলে খবর। এ ছাড়াও মহিলা কমিশনের একটি প্রতিনিধিদল এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের একটি প্রতিনিধিদলও এই রাজ্যে পাঠাতে কেন্দ্র। এই প্রসঙ্গেই মনে করিয়ে দেওয়া যায়, বঙ্গে ইতিমধ্যেই কেন্দ্রীয় তপশিলি কমিশনের সদস্যরা অবস্থান করছেন। দু’দিনের সফরে এসেছেন তারা। এ বার নতুন করে আসছে আরও একটি দল। এমনটাই জানা গিয়েছে। যদিও ভোট মেটার পর থেকে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক এবং মহিলা কমিশনের দল রাজ্য থেকে ঘুরে গিয়েছে। বাংলা থেকে ঘুরে গিয়ে মহিলা কমিশনের চেয়ারপার্সন জানিয়েছিলেন, তিনি পশ্চিমবঙ্গের মহিলাদের চোখে ভয়ের ছবি দেখেছেন। তাঁর এই মন্তব্যের পর ফের মহিলা কমিশনের একটী দল বাংলায় আসবে বলে জানা যাচ্ছে।

শান্ত আছে বাংলা, মন্তব্য মমতার

শান্ত আছে বাংলা, মন্তব্য মমতার

কেন্দ্রের পাঠানো প্রতিনিধি দলের বিরুদ্ধে উত্তেজনা ছড়ানোর অভিযোগ তুলেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছিলেন, “বাংলায় কিছু হয়নি। বাংলা শান্ত আছে। একটা সরকার শপথ নেওয়ার ২৪ ঘণ্টার মধ্যে যারা কেন্দ্রীয় দল পাঠিয়ে দেয়, তাদের ন্যূনতম সৌজন্য বোধ আছে? এত বড় ল্যান্ডস্লাইড ভিকট্রি নিয়ে একটা সরকার এসেছে, আইনশৃঙ্খলা তো রাজ্যের বিষয়। কেন কেন্দ্রীয় দল উত্তেজনা ছড়াবে? কিন্তু মমতার বন্দপাধ্যায়ের কার্যত অভিযোগে কোনও গুরুত্ব দিতে নারাজ কেন্দ্র! তা কার্যত স্পষ্ট।

[ad_2]

Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *