ভোট মিটতেই দিকে দিকে আক্রান্ত বিজেপি কর্মীরা, অর্জুনের মুখে ইস্তফার কথা, কেন বললেন বিজেপি সাংসদ

[ad_1]

ভোট পরবর্তী হিংসার বলি

বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ গতকাল সাংবাদিক বৈঠক করে দাবি করেন, তৃণমূলের জয়ের পরেই রাজ্যে ৫ বিজেপি কর্মী খুন হয়েছেন। একাধিক বিজেপি কর্মী সমর্থক ঘর ছাড়া। পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে তাঁদের বাড়ি ঘর। শীতলকুচিতে বিজেপির জয়ের পরেও খুন হয়েছে। এই ধরনের ভোট পরবর্তী সন্ত্রাস নজিরবিহীন বলে দাবি করেছেন দিলীপ। এই নিয়ে গতকালই রাজ্যপালের কাছে গিয়ে অভিযোগ জানিয়ে এসেছেন তাঁরা।

অর্জুনের হুঁশিয়ারি

অর্জুনের হুঁশিয়ারি

বিজেপিতে ১৮ জন সাংসদ এবং ৭৭ জন বিধায়ক রয়েছে। তারপরেও যদি আক্রান্ত মানুষের পাশে কেউ দাঁড়াতে না পারে তাঁদের বেঘোরে মরতে হয় তাহলে তাঁদের ইস্তফা দেওয়া উচিত। এই দলীয় কর্মীরাই কাঁদের নির্বাচিত করেছে। অথচ তাঁদের পাশে দাঁড়াতে না পারলে সেই পদে থাকার কোনও অধিকার নেই বলে দাবি করেছেন অর্জুন। এদিকে শুভেন্দু অধিকারী দলীয় কর্মীদের পাশে থাকার বার্তা দিয়েছেন।

শহরে জেপি নাড্ডা

শহরে জেপি নাড্ডা

রাজ্যে একের পর এক বিজেপি কর্মীখুন এবং আক্রান্ত হওয়ার ঘটনা শোনার পরেও বাংলায় এসেছেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা। দমদম বিমান বন্দরে পা রেখেই তিনি দিলীপ ঘোষ এবং কৈলাশ বিজেয়বর্গীয়ের সঙ্গে বৈঠক করেন। সোনারপুর ও বেলেঘাটায় আক্রান্ত বিজেপি কর্মীর বাড়িতে যাওয়ার কথা রয়েছে তাঁর। তাঁদের পরিবারের লোকেদের সঙ্গে কথা বলবেন জেপি নাড্ডা।

রাজ্যপালকে ফোন মোদীর

রাজ্যপালকে ফোন মোদীর

বাংলার হিংসার ঘটনা নিয়ে ইতিমধ্যেই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক রিপোর্ট তলব করেছে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীও রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়কে ফোন করে হিংসার ঘটনা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। রাজ্যপাল টুইটে হিংসার ঘটনা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে পুলিশকে উপযুক্ত পদক্ষেপ করতে বলেছেন।

[ad_2]

Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *