মমতার মন্ত্রিসভার প্রাক্তনীরাও এবার পুনর্বাসন পাবেন সরকারি পদে! পরিকল্পনা চূড়ান্ত

[ad_1]

প্রাক্তনমন্ত্রীদের পুনর্বাসন দেওয়ার ভাবনা

একুশের নির্বাচনে পাঁচ জন মন্ত্রী পরাজিত হয়েছেন। ফলে তাঁরা স্বাভাবিক নিয়মেই মন্ত্রিসভা থেকে বাদ পড়েছেন। আবার টিকিট দেওয়া হয়নি তিনজন মন্ত্রীকে। তাঁদেরও মন্ত্রিসভায় আসার কোনও সুযোগ নেই। আর ৬ জন মন্ত্রী ভোটে জিতলেও তাঁদের মন্ত্রিসভায় জায়গা দেননি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর ভোট প্রক্রিয়া আটকে যাওয়া একজনকে মন্ত্রী করা যায়নি।

গৌতম পদ পেতেই ১৫ জন প্রাক্তনমন্ত্রী ভাবনায়

গৌতম পদ পেতেই ১৫ জন প্রাক্তনমন্ত্রী ভাবনায়

এই ১৫ জন প্রাক্তনমন্ত্রীকে বিভিন্ন সরকারি কমিটিতে জায়গা করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করে ফেলেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে, ডাবগ্রাম-ফুলবাড়ি থেকে পরাজিত মন্ত্রী গৌতম দেবকে শিলিগুড়ি পুরসভার প্রশাসক করা হয়েছে। তাঁর ১০ বছরের অভিজ্ঞতা রয়েছে। সেই অভিজ্ঞতা কাজে লাগানোর চেষ্টাতেই এই সিদ্ধান্ত।

পরাজিত হয়েছেন তৃণমূল সরকারের যে সব মন্ত্রীরা

পরাজিত হয়েছেন তৃণমূল সরকারের যে সব মন্ত্রীরা

গৌতমের মতো কোচবিহারের নাটাবাড়ি থেকে রবীন্দ্রনাথ ঘোষ এবং কোচবিহার উত্তর থেকে বিনয়কৃষ্ণ বর্মন পরাজিত হয়েছেন। এঁদের একজনকে উত্তরবঙ্গ পরিবহণ নিগমের চেয়ারম্যান করা হতে পারে। পুরুলিয়ার বলরামপুর থেকে পরাজিত শান্তিরাম মাহাতো ও সোনামুখী থেকে পরাজিত শ্যামল সাঁতরাকেও সরকারি কমিটিতে আনার ভাবনা চলছে।

ভোটে জিতেও মন্ত্রী হননি যাঁরা, ভাবনায় তাঁরাও

ভোটে জিতেও মন্ত্রী হননি যাঁরা, ভাবনায় তাঁরাও

বরানগরের তাপস রায় ভোট জিতলেও তাঁকে মন্ত্রী করা হয়নি। তাঁকে বিধানসভার উপ মুখ্যসচেতক করা হয়েছে। রামপুরহাটের বিধায়ক আশিস বন্দ্যোপাধ্যায়কে ডেপুটি স্পিকার করা হয়েছে। ডেপুটি স্পিকারের প্যানেলে রাকা হয়েছে অসীমা পাত্রকে। কাকদ্বীপের ৫ বারের বিধায়ক মন্টুরাম পাখিরাকে সুন্দরবন উন্নয়ন পর্যদে বসানো হতে পারে। তেমনই উলুবেড়িয়া উত্তরের বিধায়ক নির্মল মাজিকে এবার বিধানসভার কোনও কমিটির চেয়ারম্যান করা হতে পারে।

টিকিট পাননি যাঁরা, যাঁর কেন্দ্রে আটকে ভোট প্রক্রিয়া

টিকিট পাননি যাঁরা, যাঁর কেন্দ্রে আটকে ভোট প্রক্রিয়া

ভোটে না দাঁড়ানো পূর্ণেন্দু বসুকে কোনও কমিটিতে আনার পরিকল্পনা চলছে। চাকদের প্রাক্তন বিধায়ক রত্না কর ঘোষও মন্ত্রী ছিলেন। তাঁকে কোনও কমিটিতে আনা হয় কি না, সেটাও দেখার। তপনের বিধায়ক বাচ্চু হাঁসদা মন্ত্রী ছিলেন। তিনি বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন, তাঁকে ফেরানো নিয়ে এখনও কোনও সিদ্ধান্ত হয়নি। জাকির হোসেনের কেন্দ্রে ভোট বাকি থাকায় তাঁকে নিয়ে এখনই চিন্তা-ভাবনা করা যাচ্ছে না।

[ad_2]

Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *