‘শো-কজে’র কবলে তন্ময় ভট্টাচার্য, মানতে নারাজ প্রাক্তন বিধায়ক

[ad_1]

সংবাদ মাধ্যমে বিস্ফোরক তন্ময় ভট্টাচার্য

এবারের ভোটে বামেরা রাজ্যে কোনও আসন পায়নি। স্বাধীনতার পরে প্রথমবার। পরাজিত হয়েছেন গতবারে দমদম উত্তর কেন্দ্রে জয়ী তন্ময় ভট্টাচার্য। ভোট গণনার দিনেই একটি বেসরকারি চ্যানেলের পাশাপাশি সোশ্যাল মিডিয়াতেও নিজের ক্ষোভ উগরে দিয়েছিলেন তিনি। বলেছিলেন, যেসব নেতারা ওপর থেকে নির্দেশ দেয়, এই বিপর্যের দায় তাদের। কটাক্ষ করে তিনি বলেছিলেন, দলের যসব নেতা বলেন তারা ভোটের রাজনীতি করেন না, রাস্তায় থাকেন, তাদের হাতে জনগণ ফুটো বাটি ধরিয়েছে। দলে সংস্কারের দাবিও তিনি তুলেছিলেন।

মানুষের রায়কে সম্মান

মানুষের রায়কে সম্মান

তিনি আরও বলেছিলেন মানুষের রায়কে তিনি সম্মান করেন। মানুষ তাঁদের সুচিন্তিত কায় দিয়েছেন। সচেতনভাবেই রায় দিয়েছেন। তিনি বলেছিলেন, যাঁরা মানুষের রায়কে সম্মান দিতে জানে না, তাঁরা মানুষের সমর্থনও পেতে পারেন না। পাওয়া উচিতও নয়।

উত্তর ২৪ পরগনা জেলা সিপিএম-এর বিবৃতি

উত্তর ২৪ পরগনা জেলা সিপিএম-এর বিবৃতি

বিষয়টি নজরে আসার পরেই উত্তর ২৪ পরগনা জেলা সিপিএম সম্পাহদ মৃণাল চক্রবর্তীর তরফে বিবৃতি জারি করে বলা হয়, তন্ময় ভট্টাচার্য যে কথা বলেছেন, তা তাঁর ব্যক্তিগত মত। এই বক্তব্যের সঙ্গে জেলা সিপিএম-এর কোনও সম্পর্ক নেই। এই বক্তব্য জেলা সিপিএম অনুমোদন ও সমর্থন করে না। এই প্রসঙ্গে তন্ময় ভট্টাচার্যের বক্তব্য শুনে প্রয়োজনীয় সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হবে বলেও জানানো হয়।

দল ব্যাখ্যা চাইলে দেবেন

দল ব্যাখ্যা চাইলে দেবেন

এই চিঠি কি শোকজ? সিপিএম নেতার দাবি কমিউনিস্ট পার্টিতে এই চিঠিকে শোকজ বলে না। জেলা পার্টি তার নামে বিবৃতি দিয়েছে। এব্যাপারে তিনি বলেছেন, সংবাদ মাধ্যমে তিনি তাঁর ব্যক্তিগত মত দিয়েছেন। দলের মত হিসেবে তিনি কোথাও বলেননি। তাই দল ব্যাখ্যা চাইলে তিনি জানিয়ে দেবেন বলেও জানিয়েছেন।

[ad_2]

Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *